শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন

অ্যাডাল-৪৪ (ভ্যারিকোস শিরার ড্রপস)

আরোগ্য হোমিও হল / ১১১ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশ কালঃ শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ৫:৩১ অপরাহ্ন
আডেল নং - ৪৪ (ভ্যারিকোস শিরার ড্রপস)

Adele-44 (Varicose Vein Drops)।

অ্যাডাল – ৪৪ (ভ্যারিকোস শিরার ড্রপস)।

প্রস্তুত প্রণালী :  জার্মান কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ।

আরোগ্য হোমিও হল এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা এখানে আলোচনা করবো “অ্যাডাল – ৪৪ (ভ্যারিকোস শিরার ড্রপস)” কম্বিনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধ নিয়ে আজকে জনবো, এটা সবার জানা জরুরী! তো আর কথা নয় – সরাসরি মূল আলোচনায়।

ব্যবহার : অ্যাডেল নং – ৪৪ (ভেনোরবিস) ভেরিকোজ ভেইনগুলির বিভিন্ন উপসর্গের চিকিৎসায় কার্যকর।

অ্যাডাল নং – ৪৪ (ভেনোরবিস) ভূমিকা : ভেরিকোজ ভেইনগুলি সাধারণত একটি অস্বাভাবিক লক্ষণ পুরু, বাঁক এবং পা ও পায়ে বড় আকারে দেখা যায় যখন আপনার পায়ে রক্ত প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হয় তখন ত্বকের কাছাকাছি শিরাগুলিতে সংগৃহীত হয়। ভেরিকোজ শিরাগুলি ফুলে যায় আবার কখনও কখনও গাঢ় নীল রঙের দেখা যায়। ভেরিকোজ শিরাগুলির অন্যান্য লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে – জ্বলন, ভারী হওয়া, ব্যথা, ফোলাভাব, চুলকানি, ক্লান্তি, রঙ পরিবর্তন, শুষ্ক ও পাতলা ত্বক, স্কেলিং, খোলা ঘা ইত্যাদি। ভেরিকোজ শিরাগুলির কারণগুলি দীর্ঘস্থায়ী হওয়া, অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলতা, দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য, বয়স, প্রসারিত পেট ইত্যাদি। আবার কখনও কখনও ভেরিকোজ শিরা এমনকি ত্বকের আলসার, রক্ত জমাট বাঁধা বা অন্যান্য সমস্যার কারণও হতে পারে।

আরও পড়ুন – এইচ আর – ৬৩ ( আঁচিল অপসারণে কার্যকর)

অ্যাডাল নং – ৪৪ (ভেনোরবিস) ঔষধের মিশ্রণ:

(১) ইস্কুলাস হিপ (Aesculus Hippocastanum 6x)।
(২) কাপরাম এসিটিয়াম 12x (Cuprum Aceticum 12x)।
(৩) কলিনসোনিয়া ক্যানাডেনসিস 6x (Collisonia Canadensis 6x)।
(৪) ক্লেমাটিস রেক্টা 8x (Clematis Recta 8x)।
(৫) ল্যাচেসিস মুটা 12x (Lachesis Mutus 12x)।
(৬) মেলিল্টাস অফিসিয়ালিস 12x (Melilotus Officialis 12x)।
(৭) নিকোটিয়ানা ট্যাবাকাম 12x (Nicotiana Tabacum 12x)।
(৮) সালফার 12x (Sulfur12x)।

আরও পড়ুন – কেন্ট ১৮ (চর্ম রোগে কার্যকর)

অ্যাডাল নং – ৪৪ (ভেনোরবিস) ঔষধের কার্যকারিতা :

(ক) ইস্কুলাস হিপ (Aesculus Hippocastanum) : এটি শোথ, থ্রম্বোসিস, শিরাস্থ স্ট্যাসিস ও স্নায়ুবিক – বাতজনিত স্নেহের সাথে কৈশিকগুলির প্রতিরোধ করে। (শরীরের গহ্বর বা টিস্যুতে অতিরিক্ত জলযুক্ত তরল সংগ্রহের দ্বারা চিহ্নিত অবস্থা)।

(খ) কাপরাম এসিটিয়াম (Cuprum Aceticum) : এটি রক্তকণিকা ও প্লেটলেট উৎপাদনে প্রভাব রয়েছে, যা অস্থি মজ্জায় (হেমাটোপোয়েসিস) এবং এনজাইম উৎপাদনে ঘটে।

(গ) কলিনসোনিয়া ক্যানাডেনসিস (Collisonia Canadensis) : এটি শিরায় জড়ানোর কারণে রক্ত সঞ্চালনের বিরুদ্ধে কাজ করে এবং বিভিন্ন ধরণের শোথ। এটি সীমিত রক্তের ফ্লো, কার্ডিয়াক রোগ থেকে ড্রপসি থেকে মুক্তি দেয় এবং অবস্টিপেশন (গুরুতর কোষ্ঠকাঠিন্য), হার্টের ব্যথা ইত্যাদি চিকিৎসায় কার্যকর।

(ঘ) ক্লেমাটিস রেক্টা (Clematis Recta) : লিম্ফ্যাটিক লিম্ফ্যাটিক রোগের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ নিরাময়কারী, ফুলে যাওয়া, প্রদাহ ও ভ্যারিকাস আলসার, মামার প্রদাহ, ব্যথা এবং ভিড় দূর করে (যে ক্ষতগুলি শিরাস্থ ভালভের অনুপযুক্ত কার্যকারিতার কারণে ঘটে বলে মনে করা হয়)। এটি ব্যথা এবং ভিড় দূর করে।

(ঙ) ল্যাচেসিস মুটা (Lachesis Mutus) : এটি ভ্যারিকোজ শিরাগুলির লক্ষণ রয়েছে। এটি পুরো শরীরে এটি শিরাস্থ জাহাজে সেপ্টিক রক্তের বিষক্রিয়ার বিরুদ্ধে কাজ করে এছাড়াও মহিলাদের জরায়ু ক্যান্সার, দুর্বলতা, পুরো শরীরে প্রদাহ সংবেদন, হৃৎপিণ্ডের অনুভূতি সীমাবদ্ধ করে এবং হৃৎপিণ্ডের নিয়ন্ত্রণে ব্যাঘাত থেকে রক্ষা করে।

আরও পড়ুন – এন – ১০১ (যে কোন আঁচিলের ড্রপস)

(চ) মেলিল্টাস অফিসিয়ালিস (Melilotus Officialis) : এটি রক্ত সঞ্চালন ব্যবস্থাকে সমর্থন করে। এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য থ্রম্বোটিক অবস্থা এবং থ্রম্বোফ্লেবিটিসের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে থাকে। এটি গঠনের অনুভূতি (ত্বকের উপর পোকামাকড়ের হামাগুড়ি দেওয়ার মতো সংবেদন), পা এবং বাহুতে অস্থিরতার চিকিৎসা করে।

(ছ) নিকোটিয়ানা ট্যাবাকাম (Nicotiana Tabacum) : রোগীর শরীরের ক্র্যাম্পের চিকিৎসা করে। এটি কৈশিকের ফাংশন নিয়ন্ত্রণ করে। এটি তাপের অনিয়ম, নিপীড়নের অনুভূতি, হৃদযন্ত্রের ব্যথা, হজমের ক্রিয়াকলাপের ব্যাঘাত, অঙ্গপ্রত্যঙ্গে প্যারাটিক সংবেদন এবং তাপ নিয়ন্ত্রণের সাথে যুক্ত।

(ছ) সালফার (Sulfur) : এটি বর্জ্য দ্রব্যের বিরুদ্ধে কাজ করে এবং শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করে। এই পলিক্রেস্টটি অনেক ভাল ইঙ্গিত রয়েছে অর্শ্বরোগ, ভেরিকোসিস, শিরার আলসার, পেটের প্ল্যাথোরার মতো অসুস্থতা খুঁজে পাওয়া যায়। দীর্ঘস্থায়ী লিভারের অসুস্থতা এবং সিস্টেম (রক্তনালীর যে কোনও সিস্টেম যার প্রতিটি প্রান্তে একটি কৈশিক নেটওয়ার্ক রয়েছে) ব্যাঘাতের মতো অসুস্থতা খুঁজে পেতে সহায়তা করে।

আরও পড়ুন – র‌্যাক্স নং – ৮৪ (আঁচিল)

অ্যাডাল নং – ৪৪ ঔষধ সেবন বিধি : প্রাপ্ত বয়স্করা জন্য ১৫ থেকে ২০ ফোঁটা, শিশুরা ৭ থেকে ১০ ফোঁটা ১/৪ কাপ পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩ বার অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শে সেবন করতে হবে।

চিকিৎসকের কিছু পরারর্শ : ওষুধ খাওয়ার সময় মুখের কোনো তীব্র গন্ধ যেমন কফি, পেঁয়াজ, শিং, পুদিনা, কর্পূর, রসুন ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। খাবার/পানীয়/অন্য কোনো ওষুধ এবং অ্যালোপ্যাথিক ওষুধের মধ্যে অন্তত আধা ঘণ্টার ব্যবধান রাখুন।

শর্তাবলী : কম্বেনেশন হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি সাধারণত লক্ষণে উপর ভিভি করে ব্যবহার করা হয়। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক সদৃশ্য বিধান একটি চিকিৎসা ব্যবস্থা, বেশি লক্ষণে সঙ্গে মিলিলে তবেই ব্যবহার যোগ্য। তা না হলে অবস্থার উপর নির্ভর করে ফলাফল পরিবর্তিত হতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ সেবনে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

সতর্কতা : সুস্ক ও শীতল স্থানে সুগন্ধ-দুগন্ধ, আলো-বাতাস থেকে দুরে, শিশুদের নাগালের বাহিরে রাখুন।

আরোগ্য হোমিও হল এডমিন : আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। এই ওয়েব সাইটটি কে কোন জেলা বা দেশ থেকে দেখছেন “লাইক – কমেন্ট” করে জানিয়ে দিন। যদি ভালো লাগে তবে “শেয়ার” করে আপনার বন্ধুদের জানিয়ে দিন। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


এ জাতীয় আরো খবর.......
Design & Developed BY FlameDev